মিজানুর রহমান নগরকান্দা (ফরিদপুর) প্রতিনিধি ঃ—মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণে কাজের শুরু থেকেই ব্যাপক অনিয়মের মধ্যে ঘর নির্মাণ কাজ চলছে।
১ম ও দ্বিতীয় পর্যায়ে প্রতিটি ঘরের সুবিধা ভোগীদের নিকট থেকে ঘর প্রতি ৫০ টি রাজমিস্ত্রী (শ্রমিকের)টাকা, রাজমিস্ত্রীর খাওয়ানো,প্রতিটি ঘরের মেঝ বালু ও মাটি দিয়ে ভরাট করা,ঘরের আড়ার বাঁশ কিনা,সিমেন্ট ও রং কিনান সহ কাজ শেষে বকশিস পর্যন্ত নিয়েছে একাজে সংশ্লিষ্টরা।ঘর নির্মাণের কাজে ইউএনও ও সিও এবং সালথা উপজেলা চেয়ারম্যান কোটি টাকার বানিজ্য করার অভিযোগ রয়েছে।
আশ্রয়ণ প্রকল্প -২ এর আওতায় তৃতীয় পর্যায় উপজেলা কুমারপট্রি,মাঝারদিয়া, নারানদিয়া,লক্ষনদিয়া গ্রাম সহ বিভিন্ন স্হানে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণ কাজ চলছে। যদিও এসকল ঘর সুবিধা ভোগীদের জমির কবুলিয়াত ও ঘর সহ গত ২৬ এপ্রিল মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনলাইন ভার্চুয়ালের মাধ্যমে দেশের আশ্রয়ণ প্রকল্প এলাকার সুবিধা ভোগীদে জমি সহ ঘর বুঝিয়ে দেন।
উপজেলায় দেখা যায় বিভিন্ন আশ্রয়ন প্রকল্পে এসকল ঘর নির্মাণ কাজ এখনো চলছে।
আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর নির্মাণে চলছে একাধিক মাতুব্বরি। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রুপার নেতৃত্বে ১১ টি ঘর
,ভাইস চেয়ারম্যান, পিআইও,ইন্জিনিয়ার, ইউএনওর মাধ্যমে চলছে ঘর নির্মাণ কাজ।এসকল সংশ্লিষ্টরা স্হানীয় রাজমিস্ত্রীর সাথে চুক্তিতে তড়িঘড়ি করে কাজ করিয়ে নিচ্ছেন। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।কাজের স্হানে গিয়ে দেখবাল করার মতো কাউকে না পাওয়া গেলেও কথা হয় রাজমিস্ত্রীর সাথে।তিনি জানান একাজে নন অফিসিয়াল ইয়াদয়ালী নামে একজন আছেন তিনি যখন যা লাগে তা আমাদের এনে দেন।কাজে ব্যবহার করা নিম্নমানের ইটের খোয়ার বিষয় বল্লে তিনি বলে পিআইও,ইন্জিনিয়ার এনে দিয়েছে তাছাড়া আমি ইউএনওর প্রতিনিধি হয়ে কাজ করছি। কথা হয় মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রুপার সাথে তিনি বলেন আমি শুধু রাজমিস্ত্রী ঠিক করে দিয়েছি ১১ টি ঘরের জন্য,তাছাড়া মালামাল জিনিসপত্র কিনে দেয় ইউএনও সার।
উপজেলায় ১ম,দ্বিতীয় পর্যায় ৪০০ টি ঘর নির্মাণ শেষ হয়। তৃতীয় পর্যায় ২৩৩ টি ঘর নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। একাজ কবে নাগাদ শেষ হবে তা নির্মাণ শেষ না হওয়া পর্যন্ত কেউ বলতে পারছেনা।তবে সুবিধা ভোগীরা রয়েছে চিন্তিত। কবে উঠবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার ঘরে সেই আশায় দিনাতিপাত করছেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোছাম্মাদ তাছলিমা আক্তার এর নাম্বারে একাধিকবার ফোন দিয়া হলেও ফোন রিসিভ না করায় তার বক্তব্য জানা যায়নি।

By cpadmin

Leave a Reply

Your email address will not be published.

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.